বৃহস্পতিবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৮, ১০:১৮ অপরাহ্ন

ad 02

নির্বাচনী উত্তাপ নেত্রকোণা ০৪

মদন-মোহনগঞ্জ-খালিয়াজুরী তিন উপজেলা নিয়ে ঘটিত নেত্রকোণা ৪ আসন। এবার আ:লীগ থেকে ৩ জন ও বিএনপি থেকে ২ জন দলীয় মনোয়ন পত্র ক্রয় করলেও মূল আলোচনা রেবেকা মমিন, শফি আহমেদ ও তাহমিন জাহান শ্রাবণীকে নিয়ে। ১৯৯১ থেকে ২০০৮ সাল পর্যন্ত এ আসনটিতে ২বার আওয়ামীলীগ ও ২ বার বিএনপি জিতেছে। তবে ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিএনপির জনপ্রিয় প্রার্থী লুৎফুজ্জামান বাবর বিএনপি থেকে বহিস্কার হওয়ার পর তিনি সতন্ত্র হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করে বর্তমান আ:লীগের সাংসদ রেবেকা মমিন এর সাথে প্রতিদ্বন্দিতা করে সামান্য ভোটে পরাজিত হন। তবে এই এলাকায় বাবরের রয়েছে বিশাল জনপ্রিয়তা। বর্তমানে বিভিন্ন মামলায় লুৎফুজ্জামান বাবর জেলে থাকায় তার স্ত্রী তাহমিন জাহান শ্রাবণী দলীয় মনোনয় ক্রয় করেছেন। বাবরের ইমেজকে কাজে লাগিয়ে তাহমিন জাহান শ্রাবণী ধানের শীষ প্রতীকে নির্বাচনি বৈতরণী পারি দিতে চাচ্ছেন। বর্তমান সাংসদ রেবেকা মমিন আ:লীগের প্রার্থী হলেও তার বিরোদ্ধে এলাকায় রয়েছে নানা অভিযোগ। যেমন কর্মীদের অবমূল্যায়ন, অন্যের উপর পুরোপুরি নির্ভর করে তৃনমূল পর্যায়ে কার্যক্রম পরিচালনা, ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিএনপির সভাপতিকে নৌকা প্রতীকে মনোনয়ন দিতে সহায়তা, বার্ধক্যজনিত কারনে বিভিন্ন জায়গায় মুভম্যান্ট না করা ইত্যাদি। ব্যক্তিগতভাবে রেবেকা মমিনের কর্মী সংযোগ নাই বললেই চলে। তাছাড়া এবার আ:লীগ থেকে মনোনয়ন পত্র ক্রয় করেছেন সাবেক ছাত্রনেতা শফি আহমেদ। এলাকার আ:লীগের তৃনমূল কর্মীগণ বাবরের স্ত্রীর যোগ্য প্রতিদ্বন্দী হিসাবে শফি আহমেদকেই ভাবছেন। কারণ শফি আহমেদ ও তাহমিন জাহান শ্রাবণী একই উপজেলার বাসিন্দা। ভোটের সামিকরণে সর্বদাই বাবর মদন উপজেলায় বিপুল ভোট পেতেন যা অপর দু উপজেলার আ:লীগ প্রার্থীর প্রাপ্ত ভোটের ব্যবধান থেকে অনেক বেশি। তবে শফি আহমেদ নৌকা প্রতীকে নির্বাচনে আসলে মদন উপজেলার ভোটটি দুভাগে বিভক্ত হবে ফলে নৌকার প্রার্থী বিজয়ী হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেড়ে যাবে। অন্যথায় নৌকার ভরাডুবি প্রত্যাশা করছে এলাকাবাসী।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

ad03




– প্রধানমন্ত্রীর ১০টি বিশেষ উদ্যোগ বিষয়ক ই-বুক –

নিউজ ৭১ অনলাইন ২০১১সাল থেকে নিয়মিত প্রকাশ হচ্ছে।। আবেদিত নিবন্ধন সিরিয়াল নং ৯৩
Design & Developed BY ThemesBazar.Com
Don`t copy text!