বুধবার, ২১ নভেম্বর ২০১৮, ০৬:৫৬ অপরাহ্ন

‘কাগজবিহীন হবে সরকারি দপ্তর’

‘কাগজবিহীন হবে সরকারি দপ্তর’

বিনিয়োগ বৃদ্ধি ও সুশাসন বাড়াতে ডিজিটালাইজেশনের অংশ হিসেবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) মাধ্যমে পেপারলেস সরকারি অফিস গঠনের প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের এসডিজিবিষয়ক মুখ্য সমন্বয়ক মো. আবুল কালাম আজাদ। এনবিআরের ১১টি দপ্তরে এ কার্যক্রম শুরু করে পরবর্তী সময় তা অন্যান্য সরকারি অফিসে বাস্তবায়ন করা হবে জানিয়েছেন তিনি।

গতকাল রাজধানীর কাকরাইলে ইনস্টিটিউশন অব ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ার্সে এনবিআর আয়োজিত নাগরিক সেবায় উদ্ভাবন ‘ইনোভেশন শোকেসিং’ শীর্ষক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে এসব কথা বলেন তিনি।

এনবিআর চেয়ারম্যান ও অভ্যন্তরীণ সম্পদ বিভাগের জ্যেষ্ঠ সচিব মো. মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়ার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে এনবিআরের বিভিন্ন বিভাগের সদস্য ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। অনুষ্ঠানে এনবিআর ও সঞ্চয় অধিদপ্তরের ১১টি উদ্ভাবনকে শোকেসিংয়ের আওতায় আনা হয়েছে। মানুষকে কর সেবা দিতে একাধিক অ্যাপসহ ডিজিটাল কর ব্যবস্থার বেশ কয়েকটি ডিজিটাল উদ্ভাবনীর উদ্বোধন করা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আবুল কালাম আজাদ বলেন, ডিজিটাল পদ্ধতি ছাড়া আর্থিক খাতকে দুর্নীতিমুক্ত করা সম্ভব নয়। এনবিআর যে ১১টি উদ্ভাবন করেছে, ১১টি সেবাকে একটি অ্যাপ বা একই ছাতার তলে নিয়ে আসা উচিত। উদ্ভাবনকে শুধু একটি অফিসের মধ্যে সীমাবন্ধ না রেখে সব অফিসকে এই সেবার আওতায় আনতে হবে। সিস্টেমকে যত দ্রুত সহজ করা যাবে, তত দ্রুত দেশে বিনিয়োগ বাড়বে। এটা না হলে বিনিয়োগ বাংলাদেশে থাকবে না। এর মাধ্যমে এনবিআরকে পেপারলেস করার প্রক্রিয়া দ্রুততার সঙ্গে এগিয়ে নিতে হবে।

এনবিআর চেয়ারম্যানের উদ্দেশ্যে পরে মুখ্য সমন্বয়ক বলেন, এনবিআরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলোচনা করে পেপারলেস এনবিআর করতে একটি সময় নির্ধারণ করুন। আপনি যে সময় নির্ধারণ করবেন, যে পরিকল্পনা করবেন, আমরা অন্যান্য অফিসের জন্যও সেই সময় নির্ধারণ করব। এনবিআরকে পেপারলেস করার অভিজ্ঞতা অন্যান্য অফিসের জন্য কাজে আসবে।

সভাপতির বক্তব্যে এনবিআর চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, ‘আমরা পেপারলেস অফিস করার অগ্রযাত্রা যদি শুরু করতে পারি তবে অন্যান্য অফিসেও তা শুরু হবে। আজ আমাদের কর্মচারীরা উদ্বুদ্ধ হয়েছে। সবচেয়ে বৃহৎ জনবল নিয়ে আমরা কাজ করছি। আমরা যদি শুরু করতে পারি তাহলে অন্যান্য অফিসেও তা শুরু হবে।

মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া আরো বলেন, এনবিআরের কাজের পরিধির তুলনায় জনবলের সংখ্যা কম। জনবল বাড়াতে আমাদের প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। প্রতিটি উপজেলায় এনবিআরের কার্যক্রম ছড়িয়ে দেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। তবে সব কিছু ডিজিটাল করা সম্ভব হলে কম জনবলেও অনেক সেবা দেওয়া যাবে।

দয়া করে নিউজটি শেয়ার করুন

বিজ্ঞাপনের জণ্য ০২২




– প্রধানমন্ত্রীর ১০টি বিশেষ উদ্যোগ বিষয়ক ই-বুক –

© All rights reserved © 2018 news71online.Com
Design & Developed BY ThemesBazar.Com