নিউজ রুম এডিটর, নিউজ৭১অনলাইন

‘আমি দেশবাসীর স্বার্থের পক্ষে’

১৯৬৯ সালের ২৪ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানের লাহোর বিমানবন্দরে আওয়ামী লীগ প্রধান বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বলেন যে, লাহোর উপস্থিতির পর তথাকার অধিবাসীবৃন্দ তাহাকে যে আন্তরিক সংবর্ধনা জ্ঞাপন করিয়াছে, তাহাতে তিনি অভিভূত হইয়াছেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব গোলটেবিল বৈঠকে যোগদানের উদ্দেশ্যে রাওয়ালপিন্ডি যাত্রার পূর্বে লাহোর বিমানবন্দরে সাংবাদিকদের বলেন যে, লাহোরের বীর নাগরিকদের ভালোবাসা ও অনুরাগের কথা তিনি সর্বদাই স্মরণ রাখিবেন।

এয়ার মার্শাল আসগর খান এবং লেফটেন্যান্ট জেনারেল আজম খান প্রমুখ স্বতন্ত্র রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দের সহিত তাহার আলোচনা প্রসঙ্গে বঙ্গবন্ধু বলেন যে, তিনি তাহাদের সহিত আলোচনায় পুরোপুরি সন্তুষ্ট হইয়াছেন।

পূর্বাহ্নে শেখ মুজিবুর রহমান এবং পিপলস পার্টি প্রধান জনাব জেড এ ভুট্টো একই বিমানযোগে ঢাকা হইতে লাহোর পৌঁছিলে বিমানবন্দরে তাহাদের বিপুল সংবর্ধনা জ্ঞাপন করা হয়। পিডিএম, পিপলস পার্টি এবং আওয়ামী লীগের বিপুল সংখ্যক কর্মী সংবর্ধনায় অংশগ্রহণ করেন। তন্মধ্যে মালিক গোলাম জিলানী, জনাব জেএ রহীম, জনাব মাহমুদ আলী কাসুরী, এয়ার মার্শাল আসগর খান এবং লেফটেন্যান্ট জেনারেল মোহাম্মদ আজম খান উল্লেখযোগ্য।

বিমানবন্দরে এত বিপুল জনসমাগম হয় যে, বিমানের পক্ষে পার্কিং বে’তে পৌঁছানো একরূপ অসম্ভব হইয়া পড়ে। শেষ পর্যন্ত বিমানটি ট্যাক্সিওয়েতে থামিয়া যায় এবং জনাব ভুট্টো জনগণকে পিছনে সরিয়া যাইতে বলেন, কিন্তু জনতা তাহাকে সেখানেই অবতরণ করিতে বাধ্য করে এবং তাহার পার্টির একটি ট্রাকে উঠিয়া বসিতে বলে। তখন তাহাকে শোভাযাত্রা সহকারে বাহিরে লইয়া যাওয়া হয়।

অনরূপভাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবও সেখানেই বিমান হইতে অবতরণ করেন এবং তাহাকে শোভাযাত্রা সহকারে বাহিরে নেওয়া হয়।

এয়ার মার্শাল আসগর খান এবং লে. জেনারেল আজম খান তাঁহার কর্মসূচি সমর্থন করিবেন কিনা, এই প্রশ্নের জবাবে তাঁহার কোন ‘মন্তব্য নাই’ বলিয়া জানান। তিনি বলেন, তাহাদের সহিত আলোচনায় আমি সম্পূর্ণ সন্তুষ্ট হইয়াছি, এত আগে সে কথা বলা যায় না।

বামপন্থী কিংবা দক্ষিণপন্থী নই, স্বদেশপন্থী
জনৈক বিদেশি সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব বলেন, আমি বামপন্থীও নই, কিংবা দক্ষিণপন্থীও নই, আমি আমার স্বদেশবাসীর স্বার্থের পক্ষে। 

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, তাহার দল নিরপেক্ষ এবং ‘সকলের সহিত বন্ধুত্ব কাহারও সহিত শত্রুতা নয়’- এই বৈদেশিক নীতিতে বিশ্বাসী।

দুর্নীতি প্রসঙ্গ
দেশে বিরাজমান দুর্নীতি প্রসঙ্গে শেখ মুজিব বলেন যে, উহা বর্তমান সরকারেরই অবদান এবং দুর্নীতি বিরোধী কমিটি ও কমিশন গঠনের দ্বারা উহা উচ্ছেদ করা যাবে না। তবে জনগণের প্রতিনিধিবৃন্দ ক্ষমতা গ্রহণের সঙ্গে সঙ্গে উহার অবসান ঘটিবে। তিনি বলেন যে, দুর্নীতি কঠোর হস্তে দমন করিতে হইবে।

প্রেসিডেন্ট আইয়ুব মুসলিম লীগকে বিরোধী দলে পরিণত করার যে প্রস্তাব করিয়াছেন, তিনি সেই সম্পর্কে কোন মন্তব্য করিতে বিরত থাকেন। বঙ্গবন্ধু পিন্ডি অবস্থানকালে ‘ডাক’ নেতৃবৃন্দের সহিত গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোচনা করিবেন বলিয়া জানান।

তথ্যসূত্র : এই দেশ এই মাটি গ্রন্থ।

18.02.2020 | 03:38 PM | সর্বমোট ২৫১ বার পঠিত

‘আমি দেশবাসীর স্বার্থের পক্ষে’" data-width="100%" data-numposts="5" data-colorscheme="light">

জাতীয়

এ কে মোমেনকে চীনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীর ফোন

করোনা পরিস্থিতিতে বাংলাদেশকে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছেন চীনের স্টেট কাউন্সিলর ও পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং আই।মঙ্গলবার বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনকে...... বিস্তারিত

08.04.2020 | 10:05 PM




রাজধানী

ঢাকায় আরো ৩৯ জনের করোনা শনাক্ত

দেশে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৫৪ জন করোনাভাইরাসে সংক্রমিত রোগী শনাক্ত হয়েছেন, যাদের মধ্যে রাজধানী ঢাকার অধিবাসী ৩৯ জন এবং...... বিস্তারিত

08.04.2020 | 02:59 PM


চট্টগ্রাম

ফেইসবুকে নিউজ ৭১ অনলাইন

ধর্ম

সেহরি ও ইফতারের সময়সূচি প্রকাশ

রমজান মাস আসন্ন। বছর ঘুরে আবারও আসছে মুসলিম জাতির জন্য অত্যন্ত পবিত্র এ মাসটি। ১৪৪১ হিজরি অর্থাৎ ইংরেজি ২০২০ সালের...... বিস্তারিত

05.04.2020 | 09:43 AM

বিনোদন

সর্বশেষ সংবাদ

সব পোস্ট

English News

সম্পাদকীয়

বিশেষ প্রতিবেদন

মানুষ মানুষের জন্য

আমরা শোকাহত


অতিথি কলাম


সাক্ষাৎকার


অন্যরকম

ভিডিওতে ৭১এর মুক্তিযোদ্ধের ইতিহাস


ভিডিও সংবাদ