শাকিল মুরাদ, বিভাগীয় প্রধান ,শেরপুর

ওরা ১২জন নামছে এখন মহাযুদ্ধে!

শাকিল মুরাদ: গল্পটা জয়ের। স্বপ্নের সিড়ি ধরে এগোনো কিছু স্বপ্নবাজদের গল্প। যারা পেছনের পরাজয়কে হার মানিয়েছে। এ যুদ্ধের এক নায়ক শাহিন মিয়া। তিনিও দেশ মাতৃকার টানে নেমেছিলেন বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে। আজ সেনাবাহিনী থেকে ছুটিকালীন সময়ে তাকে দিয়েছে আরেক যুদ্ধের পরিচালনায়। তিনি স্বপ্ন বাজদের নিয়ে এগোতে গঠন করেছেন সংগঠন। যার নাম দিয়েছেন ‘ডপস’ (দরিদ্র ও অসহায় উন্নয়ন সংস্থা)।

সম্প্রতি এসএসসির ফলাফল নিয়ে অনুসন্ধানে গেলে কথা হয় এ মহাযুদ্ধের পরিচালকের সাথে। তিনি তুলে ধরেন তার অভিযানের বিজয়ীদের কথা। তাদের বিজয়ের নেপথ্যের আর এ মহাযুদ্ধের সামনে এগোনোর এক দুঃসাহসিক গল্পের কথা। রমজান আলী। বাবা অটো রিক্সা চালক আব্দুল ছালাম। বাড়ি শেরপুরের ঝিনাইগাতী উপজেলার শালচূড়া গ্রামে। রমজান শালচূড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের ছাত্র। রমজান এবার এসএসসি পরীায় জিপিএ-৫ পেয়েছে। তারা ৪ সদস্যের পরিবার। তাদের সংসারে রয়েছে অভাবের টানাপোড়েন। তবে তারা রমজানকে নিয়ে অনেক স্বপ্ন দেখেছে। এখন সে স্বপ্ন পূরনের পথে। ভাল ফলাফল করেছে। তবে আশংকার কালো থাবায় ঝাপসা হয়ে আসে রমজানের বাবার চোখ। অভাবের তাড়না মেটানো তার পে অসম্ভব। এর মধ্যে ছেলেকে কলেজে ভর্তি করাবে। এ দুঃশ্চিন্তা এখন স্বপ্নটা ঢাকা পড়ছে কালো মেঘে।

তার মতো সানোয়ার হোসেন। এফ রহমান উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এবার এসএসসি পরীায় জিপিএ-৫ পেয়েছে। তার বাড়ি একই উপজেলার ঘাঘড়া কামারপাড়া গ্রামে। তার বাবা মোহাম্মদ আলী। তিনি একজন দিন মজুর। যে বাবা দিন মজুরি করে সংসার চালায়। তার পে ছেলেকে কলেজে পড়াবে। এমন স্বপ্ন পূরণে কি পরিমান পরিশ্রম তাকে করতে হবে এটা যে কেউ অনুভব করতে পারবে। তবে থেমে থাকবে না তার পড়ালেখা। আরও হাড়ভাঙা পরিশ্রম করে হলেও তাকে পড়া লেখা করাবে। এমনটাই প্রত্যাশা জানিয়ে তিনি এ প্রতিনিধিকে বলেন, এটা ডপসের কারনে হয়েছে। তিনি দেখিয়েছেন পড়া লেখার কোনো বিকল্প নেই। ওই বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে সাকিব আল হাসান। তার বাবা আব্দুল মান্নান একজন ুদ্র ব্যবসায়ী। পরিবারে সদস্য সংখ্যা ৫ জন। তার বাবা আব্দুল মান্নান জানান, ব্যবসা যে আয় হয় তা সংসার চালানো কঠিন। ছেলেকে ভর্তি করাবো কিভাবে?

মনিরুজ্জামান মনির একই বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে। বাড়ি পার্শ্ববর্তী পাইকুড়া গ্রাম। তার বাবা কছম উদ্দিন। স্থানীয় বিলে মাছ ধরেন। এ দিয়ে চলে তাদের সংসার। অবসরে মাছ ধরার বুরোং তৈরি করে আশপাশের বাজারে বিক্রি করেন। তবে আয় একেবারেই অল্প। যা দিয়ে কোনো মতে ৫ সদস্যের সংসারে দিন যায় তাদের। ওই বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে দিন মজুর আব্বাছ আলীর ছেলে শাহাদাৎ হোসেন। জোলগাও গ্রামের এ বাসিন্দা দিন মজুরি করে সংসার চালান। এখন তার ছেলেকে কোন কলেজে ভর্তি করাবেন তা নিয়ে রয়েছেন দুঃশ্চিন্তায়। একই উপজেলার ভাইটপাড়া গ্রামের মনির। ঝিনাইগাতী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে। তার বাবা দিন মজুর সিরাজুল ইসলাম। তিনিও ছেলেকে কিভাবে কলেজে ভর্তি করাবেন তা নিয়ে রয়েছেন দুঃশ্চিন্তায়।

একই অবস্থায় রয়েছে জিপিএ-৫ প্রাপ্ত গান্ধিগাও গ্রামের ুদ্র কৃষক আবু তালেবের ছেলে মাহিবুর রহমান। রাংটিয়া উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এ মেধাবি জিপিএ-৫ পেয়েছে। শেরপুর ভিক্টোরিয়া একাডেমি থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে আবু রায়হান। তার বাবা বাজিতখিলা গ্রামের বৃদ্ধ আমিনুল ইসলাম। দুর্গানারায়নপুরের নিত্য রায়ের ছেলে গৌতম রায়। গৌতম ওই বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে। গৌতম মিষ্টির দোকানে কাজ করে। সদর উপজেলা বাজিতখিলা গ্রামের আমিনুল ইসলামের ছেলে আবু রায়হান ওই বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে। এখন মিষ্টির দোকানে কাজ করবে না পড়া লেখা এ প্রশ্ন এখন ঘোরপাক খাচ্ছে তার পরিবারে।

শ্রীবরদী উপজেলার গোপালখিলা গ্রামের দিন মজুর সুন্দর আলীর ছেলে আবুল কাশেম। গোপালখিলা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে। নালিতাবাড়ি উপজেলার নিচিন্তপুর গ্রামের আবুল কালাম আজাদের কন্যা আফসানা মিমি জাগরন একাডেমি থেকে জিপিএ ৫-পেয়েছে। তার বাবা একেবারেই দরিদ্র। মিমি সামনে এগুতে চায়। দারিদদ্রের কষাঘাতে যে পরিবারটি নিস্পেষিত। তাদের আবার সামনের দিকে এগুনোর স্বপ্ন? কিন্তু কিভাবে? একই উপজেলার বাতুকুচি গ্রামের ওমর আলীর ছেলে সাইদুল ইসলাম। কলিম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় থেকে জিপিএ-৫ পেয়েছে। সাইদুল গার্মেন্টসে চাকরি করে পরীা দিয়েছিল। এখন গার্মেন্টসে চাকরি করবে না পড়া লেখা করবে? তবে পেছনে রয়েছে ডপস। এ সংগঠন সামনের এগোনোর মহাযুদ্ধে নেমেছে। পরামর্শ আর শিা উপকরণ দিয়ে এগিয়ে নিচ্ছে ওদের মতো অসংখ্য মেধাবীকে। ওরা ১১ জনও ডপসের অভিযানে মেধাযুদ্ধে। অভাব অনটন আর সামাজিক প্রতিবন্ধকতা মোকাবেলা করে প্রতিনিয়ত যুদ্ধ করে চলছে ওরা। এখন নামতে হচ্ছে মহাযুদ্ধে। ওরা ভর্তি হবে কলেজে। অনেকের প্রশ্ন ওরা কি পারবে এ যুদ্ধে জয়ী হয়ে লক্ষ্য স্থানে পৌছাতে?

20.05.2018 | 08:55 PM | সর্বমোট ১৬৫ বার পঠিত

ওরা ১২জন নামছে এখন মহাযুদ্ধে!" data-width="100%" data-numposts="5" data-colorscheme="light">

জাতীয়

সিএমএইচে সুযোগ পেলে শেখ হাসিনাকে স্কয়ারে নিয়ে যেতাম না

সাবজেলে বন্দি থাকাবস্থায় বতর্মান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল-সিএমএইচে চিকিৎসা করানোর সুযোগ পেলে স্কয়ারে নিয়ে যেতাম না বলে মন্তব্য...... বিস্তারিত

18.06.2018 | 05:38 PM




রাজধানী

রাজধানীর বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে নানা বয়সী মানুষের ঢল

গতকাল ঈদের নামাজের পর থেকেই রাজধানীর বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে নানা বয়সী মানুষের ঢল নামে। আজ রবিবারও সব বিনোন কেন্দ্রেগুলোতে রয়েছে প্রচণ্ড...... বিস্তারিত

17.06.2018 | 06:23 PM


চট্টগ্রাম

ফেইসবুকে নিউজ ৭১ অনলাইন

ধর্ম

বিনোদন

মহম্মদপুরে ঈদ আনন্দ’পর্যটকের ঢল শেখ হাসিনা সেতুতে

মাহামুদুন নবী(মাগুরা):-মাগুরা- ফরিদপুর জেলার বাসিন্দাদের একাত্বিকরন ও যোগাযোগ ব্যাবস্থার উন্নয়নের দিকে বিশেষ দৃষ্টি রেখে মাগুরা মহম্মদপুরের মধুমতিদ নদীতে  শেখ হাসিনা...... বিস্তারিত

18.06.2018 | 12:07 AM

সর্বশেষ সংবাদ

সব পোস্ট

English News

সম্পাদকীয়

বিশেষ প্রতিবেদন

মানুষ মানুষের জন্য

আমরা শোকাহত

অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

অন্যরকম

ভিডিওতে ৭১এর মুক্তিযোদ্ধের ইতিহাস

ভিডিও সংবাদ