মোঃ ইব্রাহিম হোসেন

প্রধানমন্ত্রী আপনি উদ্যোগ নিন : মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা

গুমের বিরুদ্ধে আন্তজার্তিক সপ্তাহ চলছে। গতকাল খুলনায় অধিকারের পক্ষ থেকে গুম হওয়া ব্যক্তিদের ফিরিয়ে দেওয়ার দাবীতে গোল টেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। গোল টেবিল বৈঠকে জানানো হয়, ২০০৯ সালের জানুয়ারী থেকে চলতি বছরের ৩০ শে এপ্রিল পর্যন্ত সারাদেশে ৪২৮ জন গুমের শিকার হয়েছেন। তাদের মধ্যে ৫৫ জনের লাশ পাওয়া গেছে, ২৩৬ জন জীবিত ফেরত এসেছেন অথবা পরবর্তী সময় তাদের গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত বাকী ১৩৭ জনের কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি। 

গতকাল জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে ‘মায়ের ডাক’ এর উদ্যোগে ঈদুল ফিতরের আগে গুম হওয়া স্বজনদের ফিরিয়ে দেওয়ার দাবীতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে। সেখানেও বক্তারা বলেছেন, কারো বিরুদ্ধে আমাদের কোন অভিযোগ নেই, আমরা শুধু আমাদের স্বজনদের সাথে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করতে চায়। ২০১৩ সালে ৪ ডিসেম্বর শাহীনবাগ থেকে গুম হওয়া ড্রাইভার কাউসারের প্রথম শ্রেণীর শিশু কন্যা লামিয়া আক্তার মিম কাঁদতে-কাঁদতে বলেন, হাসিনা আন্টি আমার বাবাকে ফিরিয়ে দাও, আমি বাবার হাত ধরে স্কুলে যাবো, বাবা আমাকে ঈদের জামা কিনে দিবে, তখন আশে পাশের সকলে চোখ থেকে নিজের অজান্তেই অশ্রু ঝর ছিল। সাজেদুল ইসলাম সুমনের বোন আফরোজা ইসলাম আখি বলছিল, ওদের ফিরিয়ে দিন না হলে আমাদের গুম করে ফেলুন। আর কষ্ট সহ্য হয় না। সেখানে উপস্থিত ছিলেন নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না, মানবাধিকার কর্মী নুর খান লিটন, মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা সহ গুম হওয়া ৩০ পরিবারের সদস্য। যখন আন্তজাতিক ব্যাপী গুম বিরোধী সপ্তাহ চলছে ঠিক সেই মুহুর্তে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র দলের সাবেক সভাপতি ও ছাত্রদল কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সভাপতি সজলকে তুলে নিয়ে ৩ দিন পর রামপুরা ব্রীজের কাছে চোখ-মুখ বেধে ফেলে দিয়ে যায়। রাতের গভীরে গুম ইলিয়াস আলী বাস ভবনে ডিবি পরিচয় দিয়ে এক দল মানুষ হানা দেয় এবং নানাভাবে ভয়ভীতি প্রদর্শন করে। ভয়ে কাঁপতে-কাঁপতে ইলিয়াস আলীর সহধর্মীনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক লুনা ভাবি মিডিয়াকে খরব দিলে, মিডিয়া ছুটে এলে তখন তারা পালিয়ে যায়। 

জেনেভা আন্তর্জাতিক গুম সপ্তাহ উপলক্ষ্যে যে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল সেখানে বাংলাদেশের পক্ষ থেকে পরাষ্ট্রমন্ত্রী উপস্থিত হলেও গুমের বিপক্ষে সমঝোতা স্বাক্ষর করেন নি। এতে পরিষ্কার বোঝা যায় গুম এখন রাষ্ট্রীয় হাতিয়ার। বছরের পর বছর চলে যাচ্ছে গুম পরিবারের হৃদয়ে আনন্দ হারিয়ে যাচ্ছে কারণ কোন আনন্দ ও ভালো লাগার মুহুর্তে প্রিয় মানুষটি সব সময় দূরে থাকার কারণে নিজেদের শূন্য মনে করছে। ঈদ আসে, রোজা আসে, পূজা আসে, কিন্তু ওরা আসে না, যেই শিশুটি গুমের আগে প্রথম পৃথিবী দেখেছিল, সময়ের ব্যবধানে সেই শিশু এখন আস্তে-আস্তে বড় হয়ে উঠছে। ঘরের সবাইকে যখন প্রশ্ন করে বাবা কোথায় কেউ কোন উত্তর দিতে পারে না। ২০১৩ সালের ৪ ডিসেম্বর সাবেক ৩৮ বর্তমান ২৫নং ওয়ার্ড বিএনপি’র সাধারন সম্পাদক সাজেদুল ইসলাম সুমন সহ একই দিনে ৮ জনকে গুম করা হয়। বছরের পর বছর কেটে গেলেও এখনও তাদের কেউ ফিরে আসেনি। সুমনের বৃদ্ধ মা সন্তানের অপেক্ষায় কাঁদতে কাঁদতে অন্ধ হয়ে গেছে। এখন সে তেমন কিছু চোখে দেখে না। অনুভুতিও ভোতা হয়ে গেছে। কিছুদিন আগে গোসল করতে গিয়ে ঠান্ডা পানি ভেবে গরম পানি শরীরে ঢেলে দিয়ে শরীরকে ঝলসে ফেলেছে। এখন সে মাঝে মাঝে গভীর রাতে ঘুম থেকে উঠে দরজা খুলে রাখে, মনে মনে ভাবে এই বুঝি তার সন্তান ঘরে ঢুকবে। আওয়াজ পেয়ে অন্য সদস্যরা গুম থেকে উঠে মাকে আবার বুঝিয়ে খাটে নিয়ে যায় আর তারা দরজা দিয়ে দেয়। সুমনের ছোট্ট মেয়ে আরোয়া বাসায় গেলে কাছে ছুটে আসে। আর জিজ্ঞেস করে আংকেল একা এসেছো কেন, আমার বাবা কোথায়? তখন আরোয়ার এই প্রশ্নের উত্তর কিছুতেই খুঁজে পায় না। গুম পারভেজ হোসেনের ছোট্ট মেয়ে হৃদি এখন খুবই অসুস্থ্য। অসুস্থ্যতার কারণে এবার বাবাকে ফিরিয়ে দেওয়ার দাবীতে মানববন্ধনেও আসতে পারেনি। ফোন করে কাঁদতে কাঁদতে বলেছে আংকেল আরো একটু বেশি করে চেষ্টা করুন। বাবাকে নিয়ে যেন ঈদ করতে পারি। চঞ্চলের শিশু পুত্র আহাদ সে প্রায় বলে বাবাকে কি খুঁজে পাচ্ছেন না, আমাকে সাথে নিয়ে চলুন, আমি ঠিক খুঁজে বের করবো। এইভাবে গুম পরিবারের প্রতিটি শিশু সন্তান ছাতকের মত অপেক্ষায় থাকে বাবার জন্য। কিন্তু কারো বাবা ফিরে আসে না। প্রিয়তমা স্ত্রী স্বামীর অপেক্ষায় থাকতে থাকতে দুঃচিন্তা ও হতাশায় সবাই রোগা ও অসুস্থ্য হয়ে গেছে। বাকীটি জীবন কীভাবে কাটবে সেই হিসাব তারা কেউ মিলাতে পারে না। বৃদ্ধ মা ও বাবারা নির্বাক হয়ে গেছে। বিমানবন্দরে ছাত্রদলের নেতা গুম মুন্নার বাবা প্রায় অনুষ্ঠানে এসে বলতেন আমার ছেলেকে ফিরিয়ে দিন তা না হলে তার কবর দেখিয়ে দিন। এখন মুন্নার বাবা নিজেই করবে চলে গেছেন। তার স্ত্রী ময়ূরী বেগম কাঁদতে কাঁদতে অন্ধ হয়ে গেছেন, গুম পারভেজ হোসেনের বাবা ও শ্বশুর দু’জনই না ফেরার দেশে চলে গেছেন। পারভেজের স্ত্রী ফারজানার মাথার উপরে আর কোন ছাদ নেই। দুই শিশু সন্তান নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। গুম সেলিম রেজা পিন্টুর বাবা-মা ঠিক মতো কথা বলতে পারে না, বড় বোন রেহেনা মুন্নি সেও এখন নির্বাক। ভাইকে খুঁজতে খুঁজতে কখন যে স্বামী না ফেরার দেশে চলে গেছে সে তারিখ হয়তো ভুলে গেছে। লাকসামের গুম সাইফুল ইসলাম হিরু ও হুমায়ূন কবির পারভেজের পরিবার এখনো অপেক্ষায় তাদের প্রিয় মানুষটি ফিরে আসবেন। সাবেক রাষ্ট্রদূত মারুফ জামানের মেয়ে অনুষ্ঠানে এলেও কখনো কথা বলেন না। কাঁদতে কাঁদতে চোখ ফুলিয়ে ফিরে যান। মেধাবী ছাত্র জাহিদুল করিম তানভির, আল আমিন, আসাদুজ্জামান রানার পরিবাররাও দিন কন গুনছে কখন ফিরে আসবে। কারণ তারা মনে করে যেভাবে ফিরে এসেছে কল্যাণ পার্টির মহাসচিব এম.এম আমিনুর রহমান, সাংবাদিক উৎপল দাস, বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক মোবাশ্বর হাসান, ঠিক সেভাবেই তাদের প্রিয় মানুষগুলো ফিরে আসার দিন গুনছে। প্রতিবছর পবিত্র মাহে রমজান এলেই বেশ কয়েক বছর ধরে গুম পরিবারের সাথে কষ্ট, দুঃখ ভাগাভাগি করে নিয়ে ইফতার মাহফিলের আয়োজন করেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বিএনপি’র চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া। এবার রোজার আগেই ৮ ই ফেব্রুয়ারী তুচ্ছ কারণে শুধুমাত্র রাজনৈতিক রোষানলের শিকার হয়ে কারাগারে গেছেন। তাঁকে এমন কারাগারে রাখা হয়েছে, যে কারাগার ইতিমধ্যেই পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। যে মামলায় তাঁকে জেল কাটতে হয়েছে সে মামলার জামিন পেতে ২৪ ঘন্টার বেশি সময় হবার কথা নয়, কিন্তু দিনের পর দিন, মাসের পর মাস কেটে যাচ্ছে তারপরেও তাঁর জামিন হচ্ছেনা প্রতিহিংসার কারণে। আমরা আশা করব এত কিছুর পরেও পবিত্র ঈদুল ফিতরের আগে গুম পরিবারের অসহায় মানুষগুলো তাদের প্রিয় মানুষদের নিয়ে ঈদ আনন্দ ভাগাভাগি করতে পারে। যেভাবেই হোক দেশের প্রধানমন্ত্রী এখন বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি দেশী-বিদেশী অনেক প্রশংসা ও পদকে ভূষিত হচ্ছেন। মাদার অব হিউম্যানিটি দাবী করছেন। তিনি যদি মানবতারই মা হন তাহলে কেন মানবতা ধুকে ধুকে কাঁদছে। ঈদের আগে আপনি উদ্যোগ নিয়ে গুম হওয়া সবাইকে তাদের মায়ের কোলে ফিরিয়ে দিন।

লেখকঃ জাতীয় মানবাধিকার সমিতির চেয়ারম্যান, [email protected]


27.05.2018 | 04:04 PM | সর্বমোট ১৫০ বার পঠিত

প্রধানমন্ত্রী আপনি উদ্যোগ নিন : মোঃ মঞ্জুর হোসেন ঈসা" data-width="100%" data-numposts="5" data-colorscheme="light">

জাতীয়

সিএমএইচে সুযোগ পেলে শেখ হাসিনাকে স্কয়ারে নিয়ে যেতাম না

সাবজেলে বন্দি থাকাবস্থায় বতর্মান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতাল-সিএমএইচে চিকিৎসা করানোর সুযোগ পেলে স্কয়ারে নিয়ে যেতাম না বলে মন্তব্য...... বিস্তারিত

18.06.2018 | 05:38 PM




রাজধানী

রাজধানীর বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে নানা বয়সী মানুষের ঢল

গতকাল ঈদের নামাজের পর থেকেই রাজধানীর বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে নানা বয়সী মানুষের ঢল নামে। আজ রবিবারও সব বিনোন কেন্দ্রেগুলোতে রয়েছে প্রচণ্ড...... বিস্তারিত

17.06.2018 | 06:23 PM


চট্টগ্রাম

ফেইসবুকে নিউজ ৭১ অনলাইন

ধর্ম

বিনোদন

মহম্মদপুরে ঈদ আনন্দ’পর্যটকের ঢল শেখ হাসিনা সেতুতে

মাহামুদুন নবী(মাগুরা):-মাগুরা- ফরিদপুর জেলার বাসিন্দাদের একাত্বিকরন ও যোগাযোগ ব্যাবস্থার উন্নয়নের দিকে বিশেষ দৃষ্টি রেখে মাগুরা মহম্মদপুরের মধুমতিদ নদীতে  শেখ হাসিনা...... বিস্তারিত

18.06.2018 | 12:07 AM

সর্বশেষ সংবাদ

সব পোস্ট

English News

সম্পাদকীয়

বিশেষ প্রতিবেদন

মানুষ মানুষের জন্য

আমরা শোকাহত

অতিথি কলাম

সাক্ষাৎকার

অন্যরকম

ভিডিওতে ৭১এর মুক্তিযোদ্ধের ইতিহাস

ভিডিও সংবাদ